Logo
শিরোনাম
টাঙ্গাইল গোপালপুরের মাহমুদপুরের গনহত্যা দিবস স্মরণে স্মৃতিস্তম্ভ উদ্বোধন উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি ঘাটাইল পৌরসভায় শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে দেউলাবাড়ি ইউনিয়ন আ’লীগের দোয়া মাহফিল এবং কেক কাটা অনুষ্ঠান। প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন ও মুজিববর্ষ উপলক্ষে ভুমিহীনদের মাঝে ঘর হস্তান্তর। স্কুল শিক্ষিকার বিরুদ্ধে গাছ কাটা ও বাড়িঘর ও লুটপাটের অভিযোগ তরুণ ও শিক্ষিত মেধাবীদেরকে দলে জায়গা দিতে হবে: কৃষিমন্ত্রী ভিপি রুবেলের পক্ষে মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত -একাত্তরের কন্ঠ ৮ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদপ্রার্থী এস.এম রকিবুল হাসান (মানিক)। বেলায়েত হোসেনকে কাউন্সিলর হিসেবে দেখতে চান এলাকাবাসী। নির্মান প্রকৌশল শ্রমিক ইউনিয়নে টেলিভিশন প্রদান।

উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি ঘাটাইল পৌরসভায়

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি টাঙ্গাইল জেলার ঘাটাইল পৌরসভায় । দুর্ভোগে পোহাচ্ছে হাজার-হাজার মানুষ। এ পৌরসভায় নাগরিক সুযোগ সুবিধা শূন্যের কোটায়। পৌর এলাকার রাস্তা, উন্নত স্যানিটেশন, সুপেয় পানি, ড্রেনেজ ব্যবস্থা নেই বললেই চলে। জম্ম-মৃত্যু সনদ, ট্রেড লাইসেন্স ছাড়া পৌর এলাকায় নেই কোন নাগরিক সুযোগ-সুবিধা। সড়কগুলো চলাচলের অনুপযোগী।

পৌরসভা সূত্রে জানা যায়, “ক” শ্রেণীর এ পৌরসভায় ৯ টি ওর্য়াড রয়েছে, এতে ৩৫ হাজার ২ শত ৪৫ জন (২০১১ সালের আদম সুমারী অনুযায়ী) মানুষের বসবাস। হোল্ডিং রয়েছে ৬ হাজার ৭ শত। সড়ক রয়েছে ৭০ কিলোমিটার। এরমধ্যে ৪০ কিলোমিটারই কাচাঁ সড়ক।

বর্তমানে কাচাঁ,আধাকাাঁচা ও পাকা সড়কগুলো চলাচলের অনুপযোগী। সড়কগুলোতে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। শহরের প্রায় ৯০ শতাংশ সড়কেরই বেহালদশা। ফলে দীর্ঘদিন থেকে দুর্ভোগ পোহাচ্ছে হাজারো মানুষ। যানবাহন চলতে গিয়ে সড়ক দুর্ঘটনাও ঘটছে। পৌরসভাটির অধিকাংশ রাস্তা ঘাট চলাচলের অনুপযোগী হওয়ায় স্থানীয়দের দৈনন্দিন যাতায়তে দুর্ভোগের অন্ত নেই।

জলাবদ্ধতা নিরসনের জন্য কাগজে কলমে ৩০ কিলোমিটার পাকা ড্রেন ও ৪০ কিলোমিটার কাঁচা ড্রেন রয়েছে কিন্তুু বাস্তবে শহরে কাঁচা ড্রেনের অস্তিত্ব নেই। ওই বাকি সামান্য ড্রেনগুলো আর্বজনায় ভরা। বর্ষা এলেই দেখা দেয় জলাবদ্ধতা। বর্ষাকালে রাস্তা পানিতে ডুবে যাওয়ায় জনগনের চলাচল ও শীক্ষার্থীদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যেতেও বেগ পেতে হয়।

সম্পত্তি হস্তান্তর, হোল্ডিং ট্যাক্স, ইজারা, বিভিন্ন সনদ ফি আদায় হলেও পৌর এলাকায় নেই কোন উন্নয়ন। সরকারী বরাদ্দ ও পৌর সভার আদায়কৃত অর্থ কোথায় যায় তা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

পৌর বাসীর অভিযোগ, নিম্নমানের কাজ করায় যেসকল রাস্তার কাজ করা হয়েছে সেগুলো এখন আর চলাচলের যোগ্য না। কিছু লাইটিং করা হলেও তা প্রয়োজনের তুলনায় নগন্য। এদিকে পৌর এলাকায় আর্বজনা ফেলার নেই কোন নিদ্দিষ্ট স্থান। যত্রতত্র ময়লা আবর্জনা পড়ে থাকে।ফলে পৌর এলাকার মানুষ নানা রোগ ব্যাধিতে আক্রান্ত হচ্ছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঘাটাইল পৌরসভায় মেয়রকে পাওয়া যায়নি এবং মুঠোফোননেও তার সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।