Logo
শিরোনাম
ভিপি রুবেলের পক্ষে মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত -একাত্তরের কন্ঠ ৮ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদপ্রার্থী এস.এম রকিবুল হাসান (মানিক)। বেলায়েত হোসেনকে কাউন্সিলর হিসেবে দেখতে চান এলাকাবাসী। নির্মান প্রকৌশল শ্রমিক ইউনিয়নে টেলিভিশন প্রদান। আবারও সাবেক মেয়র মুক্তির জামিন ১৪ দফায় নামঞ্জুর মেয়রপ্রার্থী লিপুর পক্ষে ঘাটাইলে অটোরিকশা চালকদের শোডাউন। বানারীপাড়ায় অধ্যক্ষ নিজাম উদ্দিনের জানাজায় হাজারো মানুষের ঢল দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখতে আইনি নোটিশ। পরিষদের কাজে উপজেলা চেয়ারম্যানের অনুমোদন নেবেন ইউএনও। ঘাটাইল রিপোর্টার্স ইউনিটির অফিস পরিদর্শনে কাজী আরজু।

মুক্তিযোদ্ধার সার্টিফিকেট টাকা দিয়ে কেনা যায় – কাজী আরজু

রাফসান সাইফ সন্ধিঃ জাতীয় শােক দিবসের অনুষ্ঠানে একজন বীর মুক্তিযােদ্ধাকে মীর-জাফর ও রাজাকার আখ্যা দিয়ে বক্তব্য দিয়েছেন টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান কাজী আরজু। তার এ বক্তব্যে ক্ষােভ প্রকাশ করেছেন উপজেলার মুক্তিযােদ্ধারা।
ভাইস চেয়ারম্যান কাজী আরজুর বাড়ি আনহলা ইউনিয়নের গৌরাঙ্গী গ্রামে। তার নিজ এলাকা একাশীতে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে দুইভাগে বিভক্ত হয়ে অনুষ্ঠানের আযাজন করে আওয়ামী লীগ। একটি অনুষ্ঠানে তিনি যোগ দিয়ে অপর অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করা বীর মুক্তিযাদ্ধা মজিবর রহমান খানকে মীর জাফর ও রাজাকার আখ্যা দিয়ে বক্তব্য দেন তিনি। বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘একজন মীর-জাফর একজন রাজাকার তাকে দিয়ে কিভাবে তারা ১৫ আগস্ট অনুষ্ঠানে সভাপতি করা হয়, তার বিচার এই বাংলার মাটিতে আমরা করবো ইনশাআল্লাহ।’ তার এ বক্তব্য মুহূর্তই সামাজিক যোগাযাগ মাধ্যম ও ইউটিউবে ছড়িয়ে পড়ে।
বীর মুক্তিযাদ্ধা মজিবর রহমান খান (৭২) বলেন, আমি একজন ভাতাভোগী মুক্তিযাদ্ধা। আমার লাল মুক্তিবার্তা নং ০১১৮০৪১০১৯ । ব্যক্তিগত আক্রশ থেকে চেয়ারম্যান আমাকে নিয়ে এ মিথ্যাচার করেছেন।
ক্ষোভ প্রকাশ করে সাবেক উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার তোফাজ্জল হাসান বলেন, ভাইস চেয়ারম্যান একজন স্বাধীনতা বিরাধী লােক বলে আমি মনে করি। মজিবর রহমানকে রাজাকার বলা মানে দেশের প্রায় দুই লাখ মুক্তিযাদ্ধাকে রাজাকার বলার সামিল। তার এ বক্তব্য রাষ্ট্রদ্রোহীতার সামিল। তার সাজা হওয়া উচিত। উপজেলা মুক্তিযােদ্ধা সম্মানি ভাতা কমিটির সদস্য এমদাদুল হক খান হুমায়ুন বলন, ভাইস চেয়ারম্যান ছােট বয়সে বড় পদ পেয়েছেন, এমন বক্তব্য বয়সের দােষ। অতিবিলম্বে তার এ বক্তব্যে প্রত্যাহার করা উচিত। সাবেক ডেপুটি কমান্ডার ও ঘাটাইল সরকারি জিবিজি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ শামছুল আলম মনি বলেন, মজিবর রহমানর লাল মুক্তিবার্তায় নাম আছে, একজন প্রকৃত মুক্তিযাদ্ধাকে এভাবে রাজাকার বলার অধিকার নাই।
উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ শহিদুল ইসলাম লেবু বলেন, মুক্তিযোদ্ধার বিরুদ্ধে এ ধরনের বক্তব্য নিন্দনীয়, এ বক্তব্যে ভাইস চেয়ারম্যান সকল মুক্তিযোদ্ধাকে খাটো করেছেন।
এ বিষয়ে ভাইস চেয়ারম্যান কাজী আরজু বলেন, মুক্তিযোদ্ধার সার্টিফিকেট টাকা দিয়ে কেনা যায়, কেনা ব্যাপারই না। মজিবর নামে ওই ব্যাক্তি এলাকায় একজন চিহিৃত রাজাকার। এলাকায় খােঁজ নিয়ে দেখেন।
এ বিষয়ে ইউএনও (ভারপ্রাপ্ত) ফারজানা ইয়াসমিন বলেন, মুক্তিযোদ্ধারা জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান, তাঁদের সে সম্মান দেওয়া উচিত। অভিযোগ পেয়েছি, সত্যতা যাচাই করে প্রোয়জনীয় ব্যাবস্থা গ্রহণ করা হবে।