Logo
শিরোনাম
ভিপি রুবেলের পক্ষে মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত -একাত্তরের কন্ঠ ৮ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদপ্রার্থী এস.এম রকিবুল হাসান (মানিক)। বেলায়েত হোসেনকে কাউন্সিলর হিসেবে দেখতে চান এলাকাবাসী। নির্মান প্রকৌশল শ্রমিক ইউনিয়নে টেলিভিশন প্রদান। আবারও সাবেক মেয়র মুক্তির জামিন ১৪ দফায় নামঞ্জুর মেয়রপ্রার্থী লিপুর পক্ষে ঘাটাইলে অটোরিকশা চালকদের শোডাউন। বানারীপাড়ায় অধ্যক্ষ নিজাম উদ্দিনের জানাজায় হাজারো মানুষের ঢল দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখতে আইনি নোটিশ। পরিষদের কাজে উপজেলা চেয়ারম্যানের অনুমোদন নেবেন ইউএনও। ঘাটাইল রিপোর্টার্স ইউনিটির অফিস পরিদর্শনে কাজী আরজু।

“দৈনিক ভােরের দর্পণ” পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ।




আমি মােঃ ইকবাল হােসেন খান, পিতাঃ মৃত আব্দুল গফুর খান, গ্রামঃ বেলদহ, উপজেলাঃ ঘাটাইল, জেলাঃ টাংগাইল। আমি এই মর্মে প্রতিবাদ করতেছি যে, গত ২৯শে এপ্রিল ২০২১ইং “দৈনিক ভােরের দর্পণ” পত্রিকায় “বেলদহ গ্রামে ইকবাল বাহিনীর তাওবে অতিষ্ঠ গ্রামবাসী” শিরােনামে একটি মিথ্যা, বানােয়াট, ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্যপ্রণােদিত সংবাদ প্রকাশ করা হয়। সংবাদের মূল অংশে বলা হয় কাইয়ুম নামের জনৈক এক ভুদ্রলােকের বসতবাড়ি ভাংচুর, লুটপাট এবং তাকে মারধর করা হয়েছে। কাইয়ুম সাহেব আহত হয়েছেন এ ঘটনা সত্য হলেও তার বসতবাড়ীতে হামলার কোন ঘটনা ঘটেনি এবং তাকে আহত করার ঘটনাস্থলও তার গ্রাম বিয়ারা নয়। কে বা কাহারা তাকে আহত করেছেন তা আমি জানি না। এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে দােষীদের বিচার হােক এটাও আমি মনে প্রাণে চাই। এই ঘটনায় আমি সম্পূর্ণ নির্দোষ এবং ঘটনার পুরাে বিবরণ আমি জানি ভুক্তভােগীর স্ত্রী এলিজার ফোনের মাধ্যমে। আমার প্রশ্ন হচ্ছে, আমি যদি ভুক্তভােগীর বাড়িতে আক্রমণ করে উনাকে আহত করতাম তাহলে উনার স্ত্রী কেন আমাকে ফোনে ঘটনার বিবরণ জানাবেন? ফোনের প্রমাণ স্বরূপ সকল রেকর্ডিং আমার কাছে রয়েছে। এ বিষয়ে একটি মামলা চলছে তাই আমি সকল প্রমাণাদি এখানে না দিয়ে বিজ্ঞ আদালতের কাছে পেশ করবাে। শ্যামবিয়ারার গ্রামে কোথায় কোন জায়গায় এতিমখানা হবে সেটা আমি জানবােই বা কীভাবে আর বন্ধ করবােই বা কীভাবে? এ বিষয়ে কোন তথ্য প্রমানাদি আছে কিনা তা বিজ্ঞ সাংবাদিক বন্ধুর কাছে জানতে চাই। বেলদহর খলিল ও দত্ত গ্রামের জলিল নামের যে দুজনের কথা বলা হয়েছে তারা সরাসরি আমার ভাতিজা ও ছাত্রলীগ কর্মী। তাদের সাক্ষর সহ সকল অভিযােগের অসত্যতা তারাই এই সংবাদপত্রের মাধ্যমে প্রমাণ করেছেন।



বেলদহ গ্রামের শতকরা ৯৮ জন লােক আমাকে ভালােবাসে, আমাকে নিয়ে গর্ব করে এবং আমি তাদের আস্থার প্রতীক।প্রয়ােজনে বেলদহ গ্রামের সকল মানুষ গণস্বাক্ষর দিতেও প্রস্তুত। মূলত আমি দিঘলকান্দি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের পর পর দুইবারের নির্বাচিত সভাপতি এবং আসন্ন দিঘলকান্দি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয় মনােনয়ন প্রত্যাশী। এদিকে আওয়ামী মুখােশে ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচিত চেয়ারম্যান ও তাদের দােসর বিএনপি জামাতের
চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা আমাকে সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য নানাভাবে চেষ্টা করছেন। এই সংবাদ বােধকরি সেই অপচেষ্টারই অংশ।
বেলদহ তথা দিঘলকান্দিতে ইকবাল বাহিনী বলতে কোন বাহিনী নেই। দিঘলকান্দি আওয়ামী লীগ সভাপতি হিসেবে দিঘলকান্দির সকল মুজিব আদর্শের কর্মীই আমার। আমি তাদের নেতা। যেখানে বিরােধ সেখানই ইকবাল বাহিনী নয়, যেখানে মুজিব আদ্শের কর্মীদের উপর আঘাত সেখানেই ইকবাল। বিএনপি জামাত ও তাদের বিরুদ্ধে আমার এই
সংগ্রাম শেষ নিঃশ্বাস পর্যন্ত চলবে। জয় বাংলা। জয় বঙ্গবন্ধু।

নিবেদক
ইকবাল হােসেন খান
সভাপতি, ৬নং দিঘলকান্দি ইউনিয়ন, আওয়ামী লীগ।
ঘাটাইল, টাঙ্গাইল ।