Logo
শিরোনাম
ভিপি রুবেলের পক্ষে মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত -একাত্তরের কন্ঠ ৮ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদপ্রার্থী এস.এম রকিবুল হাসান (মানিক)। বেলায়েত হোসেনকে কাউন্সিলর হিসেবে দেখতে চান এলাকাবাসী। নির্মান প্রকৌশল শ্রমিক ইউনিয়নে টেলিভিশন প্রদান। আবারও সাবেক মেয়র মুক্তির জামিন ১৪ দফায় নামঞ্জুর মেয়রপ্রার্থী লিপুর পক্ষে ঘাটাইলে অটোরিকশা চালকদের শোডাউন। বানারীপাড়ায় অধ্যক্ষ নিজাম উদ্দিনের জানাজায় হাজারো মানুষের ঢল দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখতে আইনি নোটিশ। পরিষদের কাজে উপজেলা চেয়ারম্যানের অনুমোদন নেবেন ইউএনও। ঘাটাইল রিপোর্টার্স ইউনিটির অফিস পরিদর্শনে কাজী আরজু।

ভূঞাপুরে ফসলি জমির মাঝখানে রাস্তা ছাড়া দাঁড়িয়ে আছে সেতু।




জাহাঙ্গীর আলম,টাঙ্গাইলঃ টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার ফলদা ইউনিয়ন ফলদা দক্ষিন পাড়া এলকায় ফসলি জমির মাঝখানে একটি সেতু ও একই রাস্তার দিঘুলিয়া পাড়া নামক স্থানে আরেকটি সেতু রাস্তা ছাড়াই দীর্ঘদিন ধরে দাঁড়িয়ে আছে।

স্থানীয়রা জানান, দীর্ঘদিন আগে সেখানে সেতু নির্মাণ করা হলেও এখন পর্যন্ত রাস্তা তৈরি করা হয়নি। ফলে সেতুটি অকেজো পড়ে আছে। এ ছাড়া সেতুর দুই পাশের অ্যাপ্রোচেও মাটি ফেলা হয়নি। এতে ভ্যান বা সাইকেল নিয়ে সেতু পারাপার করা যায় না।
এ ছাড়া দিঘুলিয়াপাড়া এলাকায় সেতুটির দুই পাশে মাটি ফেলা হয়নি। রাস্তাও নেই দুই পাশে।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদফতর সূত্রে জানা যায় কৃষিপণ্য পরিবহন ও এলাকা মানুষের যাতায়াতের জন্য উপজেলার ফলদা দক্ষিণপাড়া থেকে ফলদা কেন্দ্রীয় ঈদগাহ রাস্তায় চলাচলের জন্য দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদফতরের সেতু-কালভার্ট কর্মসূচির আওতায় ১৬ ফুট দৈর্ঘ্যের সেতুটি ১১ লাখ ৬১ হাজার ৬৮২ টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয়। ২০১৪-১৫ অর্থবছরে নির্মিত
হওয়া সেতুটির দুই পাশে এখনো কোনো রাস্তা নির্মাণ করা হয়নি। ফলে সেতুটি ওই অঞ্চলের মানুষের চলাচলের কোনো কাজেই আসছে না। দিঘুলিয়াপাড়ার সেতুর কোন তথ্য উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয়ের থেকে দিতে পারেনি।

ফলদার ইউপি চেয়ারম্যান সাইদুল ইসলাম তালুকদার দুদু জানান, সেতুর দুই পাশের রাস্তা নির্মাণের জন্য প্রকল্প তৈরি হলেও স্থানীয়দের, বিশেষ করে সেখানকার জমিদাতারা মাটি না দেওয়ায় রাস্তা করা সম্ভব হয়নি। আবার রাস্তা নির্মাণ বন্ধে সেখানকার মানুষজন আদালত থেকেও নিষেধাজ্ঞার আদেশ নিয়ে আসেন।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মো. জহুরুল ইসলাম জানান বলেন, সেতুর দুপাশে রাস্তা ছিল। তবে রাস্তাটি দেবে গেছে। পুনরায় সেখানে রাস্তা তৈরিতে প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। দ্রুত সেতুর রাস্তা তৈরির কাজ শুরু করা হবে।
এ বিষয়ে ভূঞাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ইশরাত জাহান গণমাধ্যমকর্মীদের জানান, সেতুর রাস্তা না হওয়ার বিষয়টি জানা নেই। খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।