Logo
শিরোনাম
ভিপি রুবেলের পক্ষে মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত -একাত্তরের কন্ঠ ৮ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদপ্রার্থী এস.এম রকিবুল হাসান (মানিক)। বেলায়েত হোসেনকে কাউন্সিলর হিসেবে দেখতে চান এলাকাবাসী। নির্মান প্রকৌশল শ্রমিক ইউনিয়নে টেলিভিশন প্রদান। আবারও সাবেক মেয়র মুক্তির জামিন ১৪ দফায় নামঞ্জুর মেয়রপ্রার্থী লিপুর পক্ষে ঘাটাইলে অটোরিকশা চালকদের শোডাউন। বানারীপাড়ায় অধ্যক্ষ নিজাম উদ্দিনের জানাজায় হাজারো মানুষের ঢল দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখতে আইনি নোটিশ। পরিষদের কাজে উপজেলা চেয়ারম্যানের অনুমোদন নেবেন ইউএনও। ঘাটাইল রিপোর্টার্স ইউনিটির অফিস পরিদর্শনে কাজী আরজু।

বিএনপি নেতা থেকে রাতারাতি উপজেলা আ’লীগের অভিভাবক!

স্টাফ রিপোর্টারঃ ঘাটাইলে গত ইউপি নির্বাচনে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচিত পাঁচ ইউপি চেয়ারম্যানসহ সাত বিএনপির নেতা গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিজেদের স্বার্থ রক্ষায় আওয়ামী লীগে যোগদান করেন। কিছুদিনের মধ্যেই তারা বিএনপি নেতা থেকে রাতারাতি হয়ে যায় উপজেলা আওয়ামী লীগের অভিভাবক।

ঘাটাইল উপজেলা আওয়ামী লীগের রাজনীতি মূলত দুই ভাগে বিভক্ত। এক ভাগের নেতৃত্ব দেন ঘাটাইল উপজেলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক এবং উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ শহিদুল ইসলাম লেবু এবং অন্যটির নেতৃত্ব দেন সাবেক সংসদ আমানুর রহমান খান রানা।



সদ্য যোগদানকৃত সাতজন আওয়ামী লীগ নেতা- উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও জামুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান ইখলাক হোসেন খান শামীম, উপজেলা বিএনপির সদস্য ও দিঘলকান্দি ইউপির চেয়ারম্যান মো. নজরুল ইসলাম, দিগড় ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি ও দিগড় ইউপির চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ মামুন, উপজেলা বিএনপির সদস্য ও সন্ধানপুর ইউপির চেয়ারম্যান মো. শহিদুল ইসলাম, ধলাপাড়া ইউপির চেয়ারম্যান এজহারুল ইসলাম মিঠু ভূঁইয়া, উপজেলা বিএনপির ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক ও দিঘলকান্দি ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান শাহিনুর রহমান শাহীন এবং উপজেলা বিএনপির সদস্য ও দেউলাবাড়ী ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান মো. সোহরাব হোসেন। এর মধ্যে দিগড় ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি ও দিগড় ইউপির চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ মামুন ঘোড়া প্রতীক নিয়ে বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিয়ে নির্বাচিত হয়েছিলেন।

ঘাটাইল উপজেলা আওয়ামী লীগের দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, ঘাটাইলের গ্রুপিং রাজনীতিকে কাজে লাগিয়েই বিএনপি নেতারা নিজেদের ফায়দা হাসিল করছেন। সকল প্রোগ্রামেই তাদের স্থান প্রথম সারিতে। তাদের মধ্যে কেও কেও নাকি আগামী ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়নও প্রত্যাশা করছেন। জানা যায়, বিএনপি থেকে সদ্য যোগদানকৃত সাতজন নেতাই সাবেক সংসদ আমানুর রহমান খান রানার অনুসারী।

এ বিষয়ে ঘাটাইল উপজেলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক এবং উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ শহিদুল ইসলাম লেবু বলেন, ঘাটাইল উপজেলা আওয়ামী লীগ ঐক্যবদ্ধ, ঘাটাইল উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের কমিটি রয়েছে। বিএনপির নেতাকর্মীরা যারা নিজেদের আওয়ামী লীগ দাবি করছে তারা ঘাটাইল উপজেলা আওয়ামী লীগের কেউ নন, তাদের সাথে আমাদের কোন সম্পর্ক নেই। তারা মূলত ব্যাক্তির রাজনীতি করে।

এ বিষয়ে ঘাটাইল উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে ও পরে ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচিত পাঁচ চেয়ারম্যান এবং সাবেক দুই চেয়ারম্যান হটাৎ আওয়ামী লীগে যোগ দেন। দলীয় গঠনতন্ত্র এবং শৃঙ্খলাবিরোধী কার্যকলাপে লিপ্ত থাকার অভিযোগে ২০২০ সালের ১২ই জানুয়ারি তাদের কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়। নোটিশের জবাব সন্তোষজনক না হওয়ায় ২০২০ সালের ৭ই ফেব্রুয়ারি উপজেলা বিএনপির কার্যনির্বাহী কমিটি এবং উপদেষ্টামন্ডলীর সাধারণ সভায় সর্বসম্মতিক্রমে তাঁদের প্রাথমিক সদস্য পদসহ দলের সব ধরনের পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়।